West Bengal

7 months ago

Murder of Trinamool leader of Jayanagar : জয়নগরের তৃণমূল নেতা খুনে সিপিএম কর্মী আনিসুর লস্করকে গ্রেফতার করলো পুলিশ

From left: Saifuddin Lashkar, Anisur Lashkar
From left: Saifuddin Lashkar, Anisur Lashkar

 

দুরন্ত বার্তা ডিজিটাল ডেস্কঃ জয়নগরের তৃণমূল নেতা খুনে সিপিএম কর্মী আনিসুর রহমান লস্করকে গ্রেফতার করল পুলিশ। বৃহস্পতিবার নদিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে। এফআইআরে নাম ছিল এই সিপিএম নেতার। 

পুলিশ জানিয়েছে, সইফুদ্দিন খুন হওয়ার পর থেকে পলাতক ছিলেন এই সিপিএম নেতা। তাঁর মোবাইল ফোনও বন্ধ ছিল। সইফুদ্দিন খুনে জড়িত সন্দেহে ওইদিনই জনরোষের মুখে পড়ে প্রাণ যায় সাহাবুদ্দিন নামে একজনের। গ্রেফতার করা হয় শাহরুল শেখ নামে এক দুষ্কৃতীকে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটকও করা হয় বেশ কয়েকজনকে। তাদের জেরা করেই পুলিশের ধারণা সইফুদ্দিন খুনে আনিসুরই মাস্টার মাইন্ড।

পুলিশ সূত্রে খবর, জয়নগরকাণ্ডে ধৃত শাহরুল শেখ যে ‘বড়ভাই’-এর কথা সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছিলেন, তাঁর নাম আলাউদ্দিন সাঁপুই। তিনি মন্দিরবাজার থানা এলাকার টেকপাঁজা গ্রামের বাসিন্দা। এলাকায় আলাউদ্দিন সিপিএম নেতা হিসাবে পরিচিত।

তদন্ত চলাকালীন পুলিশ জানতে পেরেছে, যাঁর বাড়িতে লুকিয়ে থেকে ধৃত শাহরুল তৃণমূল নেতার গতিবিধির উপর নজর রাখছিলেন, তিনি চালতাবেড়িয়ার বাসিন্দা। নাম মোতালেফ। তিনিও এলাকায় সিপিএম কর্মী হিসাবে পরিচিত। খুনের সময় যে বাইক ব্যবহার করা হয়েছিল, তা মসিবুর রহমান লস্করের নামে। তাঁর পরিবারও সিপিএমের সমর্থক। এঁরা প্রত্যেকেই ঘটনার পর থেকে বাড়িছাড়া। প্রত্যেকের মোবাইল ফোনও বন্ধ রয়েছে। 

সইফুদ্দিন খুনের পিছনে যে ভাড়াটে খুনি রয়েছে, তা আগেই আন্দাজ করেছিলেন তদন্তকারীদের একাংশ। পুলিশ মনে করছে, খুনের আগে রীতিমতো পুরো এলাকা সরেজমিনে খতিয়ে দেখা হয়। সবটাই পরিকল্পনামাফিক। আততায়ীদের গুলি করার দিনক্ষণ এবং অপারেশনের ধরন দেখে তদন্তকারীদের অনুমান, খুনের নেপথ্যে কোনও ‘পাকা মাথা’ রয়েছে। তবে এই ‘পাকা মাথা’ যে নাসিরই, তা খোলসা করেনি পুলিশ। সূত্রের খবর, এর আগে তদন্তকারীদের একাংশ মনে করছিলেন জয়নগরকাণ্ডের ‘পাকা মাথা’ আদতে নাসির হালদার নামে টেকপাঁজা গ্রামের এক বাসিন্দা। ধৃত শাহরুলের বয়ানে উঠে এসেছিল নাসিরের নাম। শাহরুলের দাবি, সইফুদ্দিনকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন এই নাসিরই। গুলি চালিয়েছিলেন সাহাবুদ্দিন। অভিযোগ, তৃণমূল নেতা খুনের পর সাহাবুদ্দিনকে পিটিয়ে মারা হয়।

মঙ্গলবার পর্যন্ত নাসিরের সম্পর্কে বিশেষ তথ্য ছিল না পুলিশের কাছে। কিন্তু পুলিশের সূত্রে বুধবার জানা গিয়েছিল, শাহরুল জেরায় জানিয়েছেন, কলকাতায় পুরনো জিনিসপত্র কেনা-বেচার কাজ করতেন এই নাসির। যদিও এই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে নাসিরের পরিবার। তাঁর পরিবারের দাবি, নাসিরকে ইচ্ছা করে ফাঁসানোর জন্যই তাঁর নাম ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে সইফুদ্দিন খুনের পর থেকে নাসিরেরও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তার মধ্যেই আটক আনিসুর-সহ পাঁচ জন।

You might also like!