kolkata 4 months ago (19)

Parth-Arpita's numerous bank accounts : পার্থ-অর্পিতার অজস্র ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, খতিয়ে দেখতে নাজেহাল ইডি

Parth-Arpita's numerous bank accounts

 

কলকাতা, ৬ আগস্ট : গত ২৩ জুলাই গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে ইডি হেফাজতেই ছিলেন প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর ‘ঘনিষ্ঠ বান্ধবী’ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়। তাঁদের জেরা করে অন্তত ৫০ টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের খোঁজ পেয়েছেন ইডি আধিকারিকরা। সেই সব অ্যাকাউন্টের বিশদ তথ্য জানার চেষ্টা করতে গিয়ে নাজেহাল হচ্ছেন তদন্তকারীরা। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কগুলির কাছ থেকে ওই সব অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত স্টেটমেন্ট চাওয়া হয়েছে। স্টেটমেন্ট পেলে অডিট করার প্রক্রিয়া শুরু করতে পারে ইডি। ইতিমধ্যেই ফরেনসিক অডিট শুরু হয়েছে বলে ইডি সূত্রে খবর। ফরেনসিক অডিট হল এমন একটি বিষয়, যার মাধ্যমে লেনদেন সংক্রান্ত অনেক খুঁটিনাটি তথ্য জানা যায়। এর আগে সারদা কেলেঙ্কারির সময়েও ফরেনসিক অডিট করা হয়েছিল। এর থেকে দুর্নীতির সূত্র বেরিয়ে আসতে পারে বলে মনে করছেন তদন্তকারীরা। তদন্তের শুরুতেই ইডি-র আইনজীবী দাবি করেছিলেন, পেঁয়াজের খোসার মতো পরতে পরতে তথ্য রয়েছে। সে সব তথ্য ক্রমশ বেরিয়ে আসবে। ৫০ টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট শুধুমাত্র পার্থ চট্টোপাধ্য়ায় বা অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের নামেই নেই। অর্পিতার নামে থাকা সংস্থারও বেশি কিছু অ্যাকাউন্ট রয়েছে। ওই সব অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে কোনও বেআইনি লেনদেন চলত কি না, কালো টাকা সাদা করার প্রক্রিয়া চলত কি না, এ সব খতিয়ে দেখতে চান তদন্তকারীরা। ইডি সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই জেরায় উঠে এসেছে ভুয়ো সংস্থা সংক্রান্ত একাধিক তথ্য। ওই সব সংস্থার নামে টানা লেনদেন হত বলেও জানতে পেরেছেন ইডি আধিকারিকরা। অর্পিতার দুটি ফ্ল্যাট থেকে প্রায় ৫০ কোটি টাকা উদ্ধার করে ইডি। সেই টাকা উৎস কী, তা সন্ধান করতে গিয়েই এ সব তথ্য সামনে আসছে। পার্থ-অর্পিতার কোথায় কোথায় ফ্ল্যাট রয়েছে? কী কী ভুয়ো সংস্থা রয়েছে? প্রথম থেকেই এ সব জানার চেষ্টা করেছে ইডি। দু’জনের নামে থাকা একাধিক ভুয়ো সংস্থার কথা আগেই আদালতে জানানো হয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের তরফ থেকে।

You might also like!