kolkata

1 month ago

Suvendu Adhikari:‘সাংগঠনিক ব্যাপারে আমি হস্তক্ষেপ করি না’,সংগঠনের ওপর দায় চাপিয়ে বিস্ফোরক শুভেন্দু অধিকারী

Suvendu Adhikari
Suvendu Adhikari

 

দুরন্ত বার্তা ডিজিটাল ডেস্কঃ সংগঠনের কাজে তেমন আগ্রহী নন। এমনকী সংগঠনের হস্তক্ষেপ করেন না। ঠিক এই মন্তব্য এবার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর গলায়। এরপর থেকেই শুরু হয়েছে জল্পনা। প্রশ্ন উঠছে তবে কি অভিমানী শুভেন্দু অধিকারী? কারণ লোকসভা ভোটের ফলাফলের পর থেকেই রাজ্য বিজেপি-র অন্দরে শুরু হয়েছে কোন্দল। বারবার বিভিন্ন তাবড় তাবড় বিজেপি নেতারা প্রকাশ্যে মুখ খুলেছেনভোটের ফলের পর থেকেই আদি-নব্য সংঘাত নতুন করে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে বঙ্গ বিজেপিতে। দিলীপ ঘোষ একাধিক মন্তব্য করে বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্বকে চাপে ফেলেছেন। তাঁকে এবং দেবশ্রী চৌধুরীর আসন বদল নিয়ে সরাসরি নেতৃত্বকে তোপ দেগেছেন দিলীপ। এই আবহে এবার শুভেন্দু পালটা তোপ দেগে বললেন, 'ফলাফল ভালো হলে নিজেদের ক্রেডিট দেন। খারাপ হলে আমার ঘাড়ে চাপান। আমি কখনই দলের অভ‌্যন্তরের বিষয় বাইরে বলি না।' বিশ্লেষকদের মতে দিলীপ ঘোষ বা দলে তাঁর বিরুদ্ধে সুর চড়ানো নেতাদের উদ্দেশেই এই কথা বলেছেন শুভেন্দু।

শুভেন্দু বলেন, 'সংগঠনের বিষয় নিয়ে আমি কোনও প্রতিনিধিত্ব করি না। আমার কাজ প্রচার করা। সাংগঠনিক ব‌্যাপারে আমি হস্তক্ষেপ করি না। ভবিষ‌্যতে করার ইচ্ছেও নেই।' এদিকে দিলীপের নাম না নিয়ে শুভেন্দু বলেন, 'দলের ভিতরের কোনও কথা প্রকাশ্যে আমি বলি না। আমি খুব শঙ্খলাপরায়ণ। তাতে সবাই আমায় পুরস্কার দেয় না। কেউ কেউ তিরস্কারও দিতে পারে। অনেকে অনেক কিছু পোস্টও করতে পারে। তীর্যক মন্তব‌্য করতে পারে।' উল্লেখ্য, লোকসভা ভোটে মেদিনীপুর ও বর্ধমান-দুর্গাপুর আসন দু'টি হাতছাড়া হয়েছে বিজেপির। মেদিনীপুর থেকে জয়ী প্রার্থী দিলীপকে সরিয়ে নিয়ে গিয়ে এবার বর্ধমান-দুর্গাপুরে প্রার্থী করা হয়েছিল। এই রদবদলে শুভেন্দুর হাত দেখছেন অনেকেই। এরপর হেরে গিয়ে দিলীপ ঘোষও নাম না করে প্রকাশ্যে শুভেন্দুকে নিশানা করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় 'ওল্ড ইজ গোল্ড' পোস্ট করেছেন। এবার এই ইস্যুতে পালটা বিস্ফোরণ ঘটালেন শুভেন্দু। তবে চাপের মুখে ফলাফলের দায় নিজের কাঁধ থেকে ঝেড়ে ফেলতে মরিয়া শুভেন্দু। এই নিয়ে তিনি বলেন, 'প্রার্থী নির্বাচন, প্রচার কৌশল সবটাই সংগঠন তৈরি করে। এসব বিষয়ে জেলা সভাপতিরা বলতে পারবেন।'

সৌমিত্রর কথায়, “২৫ জনের কোর কমিটির মধ্য ২০ জন অযোগ্য। দল ভোগ করছে। দিলীপদার লড়াকু মনোভাব ও মুকুল রায়ের রণনীতির যৌথ প্রচেষ্টায় আমরা আগে ১৯টা সিট পেয়েছিলাম। দিলীপ ঘোষের মুখ ছিল। দুটো কাজ হয়েছে। এখানে শুভেন্দুদা আছেন। কিন্তু তাঁর পিছনে যাঁরা আছে তাঁদের তো আমাদের কাজ করতে হবে।”


You might also like!