Game

1 year ago

খেলার মাঠ নিমেষে রণক্ষেত্র! ফিরল ইডেনের স্মৃতি

Footballer Killed in Riot
Footballer Killed in Riot

 

জাকার্তা, ২ অক্টোবর : ইন্দোনেশিয়ায় ফুটবল ম্যাচে অশান্তি জের। স্টেডিয়ামের মধ্যে পদপিষ্ট হয়ে এবং কাঁদানে গ্যাসের ধোঁয়ায় দমবন্ধ হয়ে কমপক্ষে ১২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব জাভার মালাং শহরের স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়েছিল দুই যুযুধান প্রতিপক্ষ আরেমা এফসি এবং পার্সেবায়া সুরাবায়া ক্লাব। ইন্দোনেশিয়ার পুলিশ জানিয়েছে, ঘরের মাঠে ম্যাচে হারের পরেই ক্ষেপে ওঠেন আরেমা এফসির সমর্থকরা। গ্যালারি ছেড়ে মাঠে নেমে পড়েন শত শত সমর্থক। শুরু হয়ে যায় তুমুল অশান্তি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের রাখতে পাটলা কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে পুলিশ। আর তাঁর পরেই মাঠ ছাড়তে গিয়ে পদপিষ্ট হন ফুটবল সমর্থকরা।

ফুটবল ম্যাচ ঘিরে কার্যত বদ্ধভূমিতে পরিবণত হল ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব জাভা প্রদেশের কানজুরুহান স্টেডিয়াম। শনিবার রাতে হাইভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দুই প্রতিপক্ষ আরেমা এফসি এবং পার্সেবায়া। চিরকালীন প্রতিপক্ষ পার্সেবায়ার কাছে ৩-২ গোলে ম্যাচ হেরে যায় আরেমা। প্রায় দুই দশক পর এমন হার মানতে পারেননি সমর্থকরা। ইন্দোনেশিয়ার পুলিশ জানিয়েছে ম্যাচ শেষের বাঁশি বাজতেই গ্যালারি থেকে উত্তেজিত, ক্ষুব্ধ সমর্থকরা নেমে আসেন মাঠে। কার্যত তাণ্ডবের পরিস্থিতি তৈরি হয় স্টেডিয়ামে। উপায় না দেখে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ।

পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুড়তেই নতুন করে শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি। গোলমালের মধ্যেই মাঠ ছেলে পালাতে চেষ্টা করেন দুই দলের সমর্থকরাই। আর তাতেই বিপত্তি। ধাক্কাধাক্কিতে পদপিষ্ট হয়ে মৃত্যু শতাধিক ফুটবল সমর্থকের। মৃতদের মধ্যে বেশ কয়েকজন শিশুও রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ফুটবল মাঠের এই অশান্তিতে কয়েকজন পুলিশ কর্মীরও মৃত্যু হয়েছে। মাঠের মধ্যেই প্রায় ৩৫ জনের মৃত্যু হয়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে বাকিদের মৃত ঘোষণা করা হয়। শনিবারের এই ঘটনায় ফুটবল সমর্থক এবং পুলিশ কর্মী মিলিয়ে প্রায় ১৮০ জন জখম হয়েছেন বলে খবর।

You might also like!