Festival and celebrations

7 months ago

Chaat Puja 2023 : শহর জুড়ে ছটের তাণ্ডব! বাজলো সাউন্ড বক্স,ফাটানো হল নিষিদ্ধ বাজি,ভাঙ্গা হলো ট্রাফিক রুল

The entrance to Rabindra Sarovar has been blocked by bamboo barricades during Chhat Puja
The entrance to Rabindra Sarovar has been blocked by bamboo barricades during Chhat Puja

 

দুরন্ত বার্তা ডিজিটাল ডেস্কঃ শহর জুড়ে ছটের তান্ডবে ব্যাতিব্যস্ত জীবন। দুই সরোবর কার্যত দুর্গ বানিয়ে পাহারা দেওয়া হলেও রবিবার দিনভর শহরের নানা জায়গার চিত্র দেখে এই প্রশ্নই উঠে এলো শহর ছটের তাণ্ডব থেকে মুক্ত হল কই? জলাশয়ের দিকে যাওয়ার সময়ে যেমন দেদার ট্র্যাফিক বিধি ভঙ্গ করা হল, তেমনই চলল অবাধে ওতারস্বরে সাউন্ড বক্স বাজানো। নিষিদ্ধ শব্দবাজি ফাটানোও বন্ধ হল না! সন্ধ্যার পরে আবার ক্রিকেট বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের প্রথম দিকে কয়েকটি উইকেট পড়ার পরে বাজি ফাটানোর ধুম আরও বাড়ল। যা দিনের শেষে প্রশ্ন তুলে দিল,উৎসব যাপনের নামে একটা বড় অংশের বাসিন্দাদের সব রকম দায়িত্ব ভুলে যাওয়ার এই রোগ সারবে কবে? সচেতন নাগরিকদের বড় অংশের আবার প্রশ্ন, সরোবর রক্ষায় এতটা তৎপর পুলিশ, তা হলে অন্য ক্ষেত্রে তারা অকৃতকার্য হয় কী করে?

এ দিন দুপুরে রবীন্দ্র সরোবরে গিয়ে দেখা যায়, ১২টি গেটের প্রতিটিতে আলাদা দল গড়েপুলিশি পাহারা বসানো হয়েছে। দু’টি করে গেট ধরে তৈরি করা হয়েছে বিশেষ নজরদারির ব্যবস্থা। বড় গেট ছাড়া সব দিক দিয়েই সরোবরে প্রবেশের পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সেখানেই দিনভর এলাকা ঘুরে দেখছেন কলকাতা পুলিশের উপনগরপাল পদমর্যাদার আধিকারিকেরা। গেটে রাখা হয়েছে সহকারী নগরপাল পদমর্যাদার পুলিশ আধিকারিকদের। জানা গেল, শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকেই সরোবরের দখল নিয়েছিলেন ২৫০ জন পুলিশআধিকারিক। নিয়মিত টহল দিয়েছে পুলিশের গাড়ি।

কিন্তু এমন নজরদারি শহরের অন্যত্র চোখে পড়েনি। রবিবার ছুটির দিন হলেও দুপুরের দিকে কসবা কানেক্টরে দেখা গেল, বেশ কয়েকটি গাড়ি সিগন্যালে দাঁড়িয়ে রয়েছে। তার মধ্যেই সেখানে এসে দাঁড়ায় একটি লরি।সেই লরি থেকেই চকলেট বোমায় আগুন ধরিয়ে ছুড়ে দেওয়া হচ্ছে আশপাশে। একটি গাড়ির চালক নেমে প্রতিবাদ করতে গেলেন, কিন্তু সিগন্যাল খুলে যাওয়ায় লরি চলতে শুরু করল দ্রুত। কাছেই কর্তব্যরত পুলিশকর্মী দেখেও আটকালেন না। একই অবস্থা ই এম বাইপাসের একটি বেসরকারি হাসপাতালের পিছনের জলাশয়ের সামনেও। সেখানে স্থানীয় নেতা-দাদাদের উদ্যোগে ছটপুজোরবন্দোবস্ত করা হয়েছে। দেখা গেল, দুপুর সাড়ে তিনটে থেকেই সেখানে বাজনা বাজিয়ে, গাড়িতে বক্স লাগিয়ে পুণ্যার্থী-দল আসতে শুরু করেছে। সেখানেও চোখে পড়ল দেদার শব্দবাজি ফাটানোর চিত্র।

একই রকম ছবি ধরা পড়েছে হেস্টিংস, ভবানীপুর, টালিগঞ্জ, কাশীপুর, বেলেঘাটার নানা জায়গাতেও। টালিগঞ্জ এলাকায় আবার ছটের ভিড়ের মধ্যে থেকে বাজিতে আগুন ধরিয়ে ছুড়ে দেওয়া হয় রাস্তার এক প্রান্ত থেকে আর এক প্রান্তে। তবে সব চেয়েআতঙ্কের ছবি দেখা যায় ইডেন গার্ডেন্স চত্বরে। সেখানে বেশ কিছু ক্ষণ ধরেই ভিড়ের মধ্যে থেকে নিষিদ্ধ শব্দবাজি ফাটানোর অভিযোগ উঠছিল।

শহরের বেশ কিছু জায়গায় শনিবার রাত থেকেই তারস্বরে মাইক বাজানোর অভিযোগ উঠেছে। রবিবার ক্রিকেট বিশ্বকাপের খেলার সময়ে অনেক জায়গায় আবার বক্স বাজানো হয়েছে বলে অভিযোগ। বেহালা চত্বরেই এমন বক্স বাজানো নিয়ে গন্ডগোল পৌঁছয় থানায়। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। 

You might also like!