Entertainment

2 weeks ago

Rajkummar Rao and Janhvi Kapoor:মিথ্যা তথ্য দিয়ে সেন্সর সনদ ছাড়া বিদেশি সিনেমা প্রদর্শন!

Rajkummar Rao and Janhvi Kapoor
Rajkummar Rao and Janhvi Kapoor

 

 দুরন্ত বার্তা ডিজিটাল ডেস্কঃ নিয়ম অনুযায়ী, সেন্সরে পাস হওয়ার পর সেন্সর সনদ হাতে নিয়েই হলে সিনেমা মুক্তি দেওয়ার কথা। কিন্তু বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে বলিউডের রাজকুমার রাও ও জাহ্নবী কাপুর অভিনীত আমদানির ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস মাহি’ ছবিটির মুক্তিতে উল্টো ঘটনা ঘটল। সেন্সর সনদ ছাড়াই গত শুক্রবার মাল্টিপ্লেক্সসহ ১৪টি হলে মুক্তি পায় ছবিটি।

জানা গেছে, গত ৩০ মে সেন্সর বোর্ড ছবিটি দেখে। কিন্তু ওই দিন সেন্সর সনদ দেয়নি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানকে (অ্যাকশন কার্ট এন্টারটেইনমেন্ট)। পরবর্তী সময়ে ২ জুন সেন্সর সনদ দেওয়া হয়। অথচ তার আগেই শুক্রবার ব্লকবাস্টার, লায়ন সিনেমাস, শ্যামলী সিনেপ্লেক্সসহ দেশের ১৪টি হলে মুক্তি দেওয়া হয় ছবিটি। তবে সেন্সর সনদ হাতে না পাওয়ায় স্টার সিনেপ্লেক্সসহ অনেক হল ওই দিন ছবিটি প্রদর্শন করেনি। এর দুদিন পর সেন্সর সনদ হাতে পেয়ে স্টার সিনেপ্লেক্সসহ আরও ১০টি হল প্রদর্শন শুরু করে ছবিটির।

সেন্সর সনদ ছাড়া এভাবে ছবি মুক্তির নিয়ম নেই বলে জানান সাবেক প্রযোজক নেতা ও সেন্সর বোর্ডের সদস্য খোরশেদ আলম। তিনি বলেন, ‘৩০ মে ছবিটি আমরা দেখি। ছবিতে কোনো সমস্যা ছিল না। সেন্সর শেষ হওয়ার পর আমি চলে আসি। পরে শুনেছি, ওই দিন সেন্সর সনদ দেওয়া হয়নি। কিন্তু পরদিন শুক্রবার ছবিটি সনদ ছাড়াই কিছু হলে মুক্তি দেওয়া হয়। এটি চলচ্চিত্র সার্টিফিকেশন আইনের মধ্যে পড়ে না, বেআইনি।’

এ ব্যাপারে যমুনা গ্রুপের (ব্লকবাস্টার সিনেমাস) ডিজিএম জাহিদ হোসেন চৌধুরীও মনে করেন, সনদ ছাড়া এটি মুক্তি দেওয়া ঠিক হয়নি। তবে তিনি বলেন, ‘এখানকার প্রযোজকদের ও পরিচালক অনন্য মামুনের নিশ্চয়তার পরিপ্রেক্ষিতে এটি চালানো হয়েছে। এটি ঠিক হয়নি। তা ছাড়া আমরা প্রথম দিন ওভাবে চালাইনি। প্রথমটি টেকনিক্যাল শো ছিল। আর টেকনিক্যাল শোতে সেন্সর সনদ লাগে না। তবে এরপর কিছু দর্শকের চাহিদার কারণে ওই দিন আরও দুটি শো চালিয়েছি। এযাবৎকালে আমাদের এখানে এমন ঘটনা ঘটেনি। আমি মনে করি, এর দায় প্রযোজক ও আমদানিকারকদের।’

তবে এই কর্মকর্তা মনে করেন, এ বিষয়টি সেন্সর বোর্ডেরও খেয়াল রাখা দরকার। যখন মুক্তির আগের দিন সেন্সর বোর্ড ছবি দেখে, তখন কোনো সমস্যা না থাকলে ওই দিনই সেন্সর সনদ দিয়ে দেওয়া উচিত, যাতে সেন্সর সনদ নিয়ে পরের দিন ছবি মুক্তি দেওয়া সম্ভব হয়। পরবর্তী সময়ে সেন্সর সনদ হাতে পাওয়ার পর প্রতিদিন ছবিটির ছয়টি করে শো প্রদর্শন করছে যমুনা ব্লকবাস্টার।

একই কাজ করেছে মধুমিতা হল। সনদ ছাড়াই শুক্রবার ছবিটি প্রদর্শন করেছে। এ ব্যাপারে হলের কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘সনদ নিয়েই তো ছবি মুক্তির কথা। কিন্তু এই মুহূর্তে তো আমার সব জানা নেই। পরে হলে খোঁজ নিয়ে বলা যাবে। তবে সনদ হাতে না পেয়ে মুক্তির নিয়ম নেই।’

তবে ছবিটির আমদানিকারক অনন্য মামুনের উল্টো কথা। তিনি এখন কলকাতা আছেন। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে হোয়াটসঅ্যাপে প্রথম আলোকে মামুন বলেন, ‘না, সার্টিফিকেট নিয়েই আমরা ছবিটি মুক্তি দিয়েছি।’ কিন্তু ছবি মুক্তি পেল ৩১ মে, সনদ দেখা গেল ২ জুনের। ঘটনা কী? জানতে চাইলে ওই পরিচালক বলেন, ‘না, না, সনদের তারিখ লেখাটি ভুল ছিল। পরে ঠিক করে দিয়েছে সেন্সর বোর্ড।’

কিন্তু তা না হয় হলো, ৩১ মে ছবিটি যাঁরা মুক্তি দিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি, কোনো সেন্সর সনদ হাতে না পেয়ে আপনার মৌখিক নিশ্চয়তায় নাকি তাঁরা ছবিটি হলে প্রদর্শন করেছেন, এমন প্রশ্নে তখন অনন্য মামুন বলেন, ‘আমি তো দেশের বাইরে এসেছি। একটা কাজে ব্যস্ত আছি। পরে কথা বলব।’ বলেই দ্রুত ফোন রেখে দেন তিনি।

২০২৩ সালের সংশোধিত চলচ্চিত্র সার্টিফিকেশন আইনের ১৩ ধারার একাংশে বলা আছে—যদি কোনো ব্যক্তি সার্টিফিকেশন ছাড়া বা বোর্ডের দেওয়া মূল্যায়ন প্রতীক পরিদৃষ্ট হয় না, এমন কোনো চলচ্চিত্র কোনো স্থানে প্রদর্শন করেন বা প্রদর্শনে প্ররোচনা বা সহায়তা দেন, তাহলে এটি হবে একটি অপরাধ এবং এ জন্য তিনি অনধিক পাঁচ বছরের কারাদণ্ডে বা অনধিক পাঁচ লাখ টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।


You might also like!