Country

2 weeks ago

Forest Destroyed In India: বনভূমি নিঃশেষ হওয়ায় রিপোর্ট তলব এনজিটির

Forest Destroyed (Symbolic Picture)
Forest Destroyed (Symbolic Picture)

 

দুরন্ত বার্তা ডিজিটাল ডেস্কঃ কারণ, গ্লোবাল ফরেস্ট ওয়াচ-এর রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০০১ থেকে ’২৩-এর মধ্যে ভারতে অরণ্যধ্বংসের ৬০ শতাংশ ঘটেছে শুধু অসম (৩২৪০০০ হেক্টর), মিজোরাম (৩১২০০০ হেক্টর), অরুণাচল প্রদেশ (২৬২০০০ হেক্টর), নাগাল্যান্ড (২৫৯০০০ হেক্টর) এবং মণিপুরে (২৪০০০০ হেক্টর)। সার্বিক রিপোর্ট এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চল নিয়ে তথ্যে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে পরিবেশ আদালত।

উপগ্রহ-চিত্র, অন্য তথ্যসূত্র এবং কার্বন নিঃসরণের মাত্রা বিচার করে রিপোর্ট প্রকাশ করে গ্লোবাল ফরেস্ট ওয়াচ। ওই রিপোর্টে রাষ্ট্রসঙ্ঘের ফুড অ্যান্ড অগ্রিকালচারাল অর্গানাইজেশনের তথ্য উল্লেখ করে বলা হয়েছে, ২০১৫ থেকে ২০২০-র মধ্যে ভারতে ৬৬৮০০০ হেক্টর আয়তনের সবুজভূমি নিশ্চিহ্ন হয়েছে, যা গোটা পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বিস্তৃত অরণ্যভূমি কার্বন ডাই-অক্সাইড আত্তীকরণের সেরা আধার।বনভূমির আয়তন ক্রমান্বয়ে কমার সঙ্গে বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাত্রা বাড়া এবং জলবায়ু পরিবর্তন অঙ্গাঙ্গী সম্পর্কযুক্ত। ভারতে অরণ্যধ্বংসের মূলে কিছু প্রাকৃতিক কারণ (দাবানল, ভূমিক্ষয়, বন্যা, ঘুর্ণিঝড়) থাকলেও ম্যান-মেড বিষয়ই (তথাকথিত ‘উন্নয়ন’) সবচেয়ে দায়ী বলে উল্লেখ করা হয়েছে রিপোর্টে। যে হারে সবুজ ধ্বংস হয়ে চলেছে দেশে, তাতে বিপদ শিয়রে মেনে পরিবেশ আদালতের পর্যবেক্ষণ, বন সংরক্ষণ আইন, বায়ুদূষণ প্রতিরোধ আইন এবং পরিবেশ আইন যথেচ্ছ লঙ্ঘনের ইঙ্গিত স্পষ্ট রিপোর্টে।

২৮ অগস্ট পরবর্তী শুনানির আগেই মন্ত্রক, সার্ভে অফ ইন্ডিয়া এবং কেন্দ্রীয় পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদকে বক্তব্য জানাতে বলেছে এনজিটি।

You might also like!